বঙ্গভূমিতে ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড - Songoti

DEBI SAMMAN ADVERTISEMENT

বঙ্গভূমিতে ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড

Share This

সৌমী সেন :  এতদিন ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড মানে বুঝতাম আমরা আরব সাগরের তীরে অর্থাৎ বলিউডের ফিল্ম ফেয়ার অ্যাওয়ার্ডের কথা. ঝাঁ - চকচকে মঞ্চ, তারকাখচিত ঝলমলে  পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান।   কিন্তু বিগত কয়েক

 বছর ধরে আমাদের বাংলায় ঠিক এইরকমই ঝলমলে ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান হচ্ছে আর তাতে থাকছে টালিগঞ্জের সমস্ত কলাকুশলীরা। সম্প্রতি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড 2020 অনুষ্ঠান হয়ে গেল শহরের এক পাঁচতারা হোটেলে সেখানে

 রেড কার্পেট মাতালেন টালিগঞ্জের বিশিষ্ট অভিনেতা অভিনেত্রীরা কে ছিলেন না, শুভশ্রী মধুমিতা সরকার ইশা সাহা তানিয়া দাস অর্জুন চক্রবর্তী গৌরব চক্রবর্তী অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় সুদেষ্ণা রায়  বিক্রম ঘোষ অদিতি মুন্সির মতো বিশিষ্ট

 ব্যক্তিরা। গান সিনেমা পরিচালনা স্ক্রিপ্ট রাইটিং প্রত্যেকেই কিছু না কিছু ক্ষেত্রে নমিনেশন ছিল।  স্বভাবতই তারা একটু হলেও টেনসনে ছিলেন আবার ধামাকেদার পারফরম্যান্স দেওয়ার জন্য তৈরি ছিলেন মধুমিতা সরকার ইশা সাহা এবং

 সৌরসেনী মৈত্র।  মধুমিতা সরকার চিনির জন্য এবছরের নমিনেশন পেয়েছেন তিনি যথেষ্ট উচ্ছসিত কিন্তু তারপরও একটু টেনশনে ছিলেন, অন্যদিকে,  শুভশ্রী পরিনিতার জন্য মনোনীত হয়েছেন. কিন্তু,শুধু পরিণীতা নয় মোট নয়টি বিভাগে শুভশ্রী মনোনয়ন পেয়েছেন এবং স্বভাবতই উচ্চসিত আছেন তো ঠিকই কিন্তু তার সাথে চাপা একটা টেনশন হচ্ছিল। সবমিলিয়ে রেড কার্পেট ছিল জমজমাট অদিতি মুন্সির সুরেলা কন্ঠে নমিনেশন পাওয়া গানের দু লাইন  আমাদের শুনিয়েও দিলেন। এ ছাড়া ছিলেন জয়া এহসান. স্বাভাবিক ভাবে বলাই যায় এই আন্তর্জাতিক পর্যায়ের অনুষ্ঠান ছিল।এইবার আসি মূল মঞ্চে মূলমঞ্চে সঞ্চালনা করছিলেন অনির্বাণ চক্রবর্তী অর্পিতা চট্টোপাধ্যায় এবং পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। হাসি ঠাট্টা মজা সবকিছু মিলেই ঝাঁ-চকচকে এক অনুষ্ঠানে উপহার দিলেন সবাইকে।  লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হলো তরুণ মজুমদার কে. তরুণ মজুমদারের ছবির কিছু গান গেয়ে শোনালেন অ্যাশ কিং  এবং নিকিতা। 

 অন্যদিকে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় কেউ লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়েছে।  এছাড়া পুরস্কারের ঝুলি উপচে পড়ে ছিল যাদের হাতে সেই তালিকাটা দেখে নেওয়া যাক।

 সেরা পরিচালক – কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় (জ্যেষ্ঠপুত্র)

সেরা পরিচালক (ক্রিটিকস) – রবিবার

সেরা অভিনেতা – প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় (গুমনামী)

সেরা অভিনেতা (ক্রিটিকস) – ঋদ্ধি সেন (নগরকীর্তন)

সেরা অভিনেত্রী – স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় (শাহজাহান রিজেন্সি) / শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায় (পরিণীতা)

সেরা অভিনেত্রী (ক্রিটিকস) – জয়া আহসান (বিজয়া ও রবিবার)

সেরা সহ-অভিনেতা – ঋত্বিক চক্রবর্তী (জ্যেষ্ঠপুত্র)

সেরা সহ-অভিনেত্রী – লিলি চক্রবর্তী (সাঁঝবাতি)

সেরা মিউজিক অ্যালবাম – রণজয় ভট্টাচার্য এবং অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় (সোয়েটার) .

সেরা গীতিকার – রণজয় ভট্টাচার্য (প্রেমে পড়া বারণ – সোয়েটার)

সেরা গায়ক – অনির্বাণ ভট্টাচার্য (কিচ্ছু চাইনি আমি – শাহজাহান রিজেন্সি)

সেরা গায়িকা – লগ্নজিতা চক্রবর্তী (প্রেমে পড়া বারণ – সোয়েটার)

সেরা আবহ সংগীত – প্রবুদ্ধ বন্দ্যোপাধ্যায় (নগরকীর্তন)

সেরা নবাগত পরিচালক – ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্ত (কেদারা)

সেরা নবাগত অভিনেত্রী – ঋত্বিকা পাল (কিয়া অ্যান্ড কসমস)

সেরা কাহিনি – রুদ্রনীল ঘোষ ও সৃজিত মুখোপাধ্যায় (ভিঞ্চি দা)

সেরা চিত্রনাট্য – কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় (নগরকীর্তন) .

 সেরা সংলাপ – কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় (জ্যেষ্ঠপুত্র)

সেরা সাউন্ড ডিজাইন – সৌগত বন্দ্যোপাধ্যায় (রবিবার)

সেরা প্রোডাকশন ডিজাইন – শিবাজি পাল (গুমনামী)

সেরা সম্পাদনা – সুজয় দত্ত রায় (কেদারা)

সেরা সিনেম্যাটোগ্রাফি – শীর্ষ রায় (নগরকীর্তন)  .

বেস্ট ফ্লিম - ভিঞ্চি দা


চিত্র সৌজন্যঃ সোহম মুখোপাধ্যায়

No comments:

Post a Comment


Debi Samman

Pages