মুদির দোকানগুলিকে ‘নেক্সট জেনারেশন রিটেল’ এর জন্য তৈরি রাখার উদ্যোগে গতি আনল আইটিসি লিমিটেড - Songoti

মুদির দোকানগুলিকে ‘নেক্সট জেনারেশন রিটেল’ এর জন্য তৈরি রাখার উদ্যোগে গতি আনল আইটিসি লিমিটেড

Share This


 কলকাতা:  আইটিসি  লিমিটেড-এর আদর্শ হল সবার আগে দেশ: এই এক সূত্রে সকলে বাঁধা (নেশন ফার্স্ট: সব সাথ বাঁধে)’, অতিমারির শুরুতেই এই সংস্থার আপনার পাড়ার মতো হাজারও মুদি এবং খুচরো ব্যবসায়ীর সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতে পদক্ষেপ করে। এই মানুষগুলো ছাড়া অত্যাবশ্যকীয় পণ্য আপনি হাতের কাছে পেতেন না। তারা যাতে স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা বিধি মেনে ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারেন, তাই তাদের হাতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এবং সাহায্য তুলে দেওয়া হয়। অতিমারি শুরু পর খুচরো ব্যবসায়ীদের ‘ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত’ করতে ডিজিটাল ব্যবস্থা গড়ে তোলার কথা সংস্থার মাথায় আসে যার জেরে আইটিসি-র আর অ্যান্ড ডি গতি পায়। এই বহুমাত্রিক প্রচেষ্টারই পরিণাম একটি অনন্য ভার্চুয়াল ইভেন্ট।

 

এর প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে পাড়ায় পাড়ায় মুদির দোকানগুলির সামগ্রিক পরিকাঠামোকে মজবুত করতে আইটিসি লিমিটেড ডিজিটাল এন্যাবেলমেন্ট ফর কিরানা আউটলেটস’ শীর্ষক একট ভার্চুয়াল সামিট-এর আয়োজন করে, যেখানে খুচরো ব্যবসায়ীদের রিটেল ম্যানেজেমন্ট এবং ডিজিটাল ব্যবস্থার ব্যবহার শেখানো হয়। সেই সঙ্গে তাদের হাতে সংস্থার তৈরি ডিজিটাল সলিউশনস তুলে দেওয়া হয়। ভবিষ্যতে ব্যবসা চালিয়ে যাওয়া এবং তাদের ব্যবসায়িক বৃদ্ধির কথা মাথায় রেখে যেগুলি বিশেষ ভাবে গড়ে তোলা হয়েছে।

 

এই ভার্চুয়াল সামিটে আশাতীত সাড়া মেলে। সাড়া দেশের এক হাজার পাঁচশো চার জন খুচরো ব্যবসায়ী এতে অংশগ্রহণ করেন এবং তারা ১৬ জানুয়ারি ২০২১, তারা ‘মোস্ট ভিউয়ার্স ফর অ্য রিটেল ম্যানেজমেন্ট লাইভস্ট্রিম অন অ্য বিস্পোক প্ল্যাটফর্ম’ হিসেবে গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এর সম্মান পান। এই অনুষ্ঠান ছিল এক শাম আপকে নাম’ বলে একটি বৃহত্তর ইভেন্ট-এর অঙ্গ।


 

খুচরো বিক্রেতাদের ব্যবসাকে সমৃদ্ধ করতে বহু বছর ধরে এই সংস্থা ব্যবসা বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে যার মধ্যে আছে দোকানের ভিতর উন্নত করা থেকে সেখানে ডিজিটাল ব্যবস্থা চালু করা যাতে দোকনের ইনভেন্টিরি ম্যানেজমেন্ট। ২০২০ সালের অভূতপূর্ব পরিস্থিতি সংস্থাকে নতুন সুযোগ দিয়েছিল যাতে খুচরো ব্যবসায়ীদের জন্য নেওয়া নানা উদ্যোগগুলিকে আরও তরান্বিত করা গিয়েছে। সেই সঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতার সম্পর্ক আরও মজবুত হয়েছে।

 

ইতিমধ্যেই আইটিসি লিমিটেড খুচরো ব্যবসায়ীদের সাহায্য করতে ভার্চুয়াল ডিএসউন্নতি অ্যাপ এবং স্টোর লোকেটর-এর মতো ডিজিটাল ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে। সেলসম্যানরা অনুপস্থিত থাকলেও যাতে অর্ডার বাবদ কোনও ক্ষতি না হয়, সেই উদ্দেশে তৈরি হয়েছে ভার্চুয়াল ডিএস। উন্নতি অ্যাপ – এই অত্যাধুনিক রিটেলার অ্যাপ্লিকেশনটির মাধ্যমে মুদির দোকানিরা অনলাইনে সরাসরি আইটিসি লিমিটেড-এর কাছে অর্ডার দিতে পারে। স্টোর লোকেটার হল একটি হোয়াটস্যাপ চ্যাটবট, যা ক্রেতা এবং দোকানিকে কাছাকাছি নিয়ে আসে। এর সাহায্যে ক্রেতাদের যেমন সুবিধা হয়, তেমনই সংশ্লিষ্ট দোকানের ক্রেতার সংখ্যাও বাড়ে। ডিজিটাল ট্রানসফরমেশন তরান্বিত করতে আগামী দিনে আইটিসি লিমিটেড এর আরও ডিজিটাল টুলস আনার পরিকল্পনা রয়েছে।

 

এই উদ্যোগ প্রসঙ্গে শ্রী হেমন্ত মালিক, ডিভিশনাল চিফ একজিকিউটিভ, ফুডস, আইটিসি লিমিটেড বলেন, কোভিড-১৯ অতিমারির শুরুর দিকে প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় সামগ্রী এবং অত্যাবশ্যকীয় পণ্য কেনার জন্য পাড়ার মুদির দোকানগুলিই স্থানীয় মানুষজনের লাইফলাইন হয়ে উঠেছিল। আমরা এই দোকানিদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ঋণ স্বীকার করে তাদের পরিবারের প্রতি সম্মান জানানোর প্রয়োজন অনুভব করেছিলাম। এনারা ছিলেন বলেই এই কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে দেশ এগিয়ে যেতে পেরেছে। সারাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা থমকে যায়নি। অতিমারি খুচরো ব্যবসায়ীদের মনের জোর বাড়িয়েছে। আমরাও এই ক্ষেত্রে ডিজিটাইজেশনের গুরুত্ব এবং প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছি। আমরা আগামী দিনে আরও উদ্বাবনী ডিজিটাল টুলস নিয়ে আসব এবং খুচরো ব্যবসায়ীদের সেগুলির যথাযথ ব্যবহার শেখাব। এ ভাবেই আমরা সারা দেশের খুচরো বিক্রেতাদের ব্যবসায়িক বৃদ্ধির এক সুস্থায়ী পরিবেশ তৈরির দিকে এগিয়ে যাব।

 

শ্রী সন্দীপ সুলে, ডিভিশনাল চিফ একজিকিউটিভ, ট্রেড মার্কেটিং অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন, আইটিসি লিমিটেড বলেন, ভারতে খুচরো ব্যবসার অসম্ভব বৈচিত্রপূর্ণ এবং অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশ রয়েছে। এর একটা বড় অংশই ছোট ছোট খুচরো ব্যবসায়ীদের নিয়ে গড়ে উঠেছে। তবে খুচরো ব্যবসার ক্ষেত্রে ডিজিটাল মাধ্যমের বিবর্তনে আরও গতির প্রয়োজন। বিশেষ করে ছোট ছোট দোকানগুলির ক্ষেত্রে। কীসের প্রয়োজন রয়েছে এবং সেই অনুযায়ী কোন কোন খামতিগুলি পূরণ করতে হবে তা বুঝে নিয়ে আমরা ডিজিটাল টুলস তৈরির দিকে এগিয়ে যেতে চাই। যাতে এই দ্রুত বদলে যাওয়া দুনিয়ায় খুচরো ব্যবসায়ীরা টিকে থাকতে পারেন। ডিজিটাল এন্যাবেলমেন্ট ফর কিরানা আউটলেটস’ – এই ডিজিটাল সামিটটি সেই লক্ষ্যে এক দারুণ শুরু। এই উদ্যোগকে ঘিরে আমরা যে বিপুল সাড়া পেয়েছে তাতে আমরা আপ্লুত। দেশের খুচরো ব্যবসাক্ষেত্র যে ব্যবসার নতুন নতুন ধরনগুলি আপন করতে পিছপা নয়, এটা তারই প্রতিফলন। দেশের খুচরো ব্যবসায়ীদের এই ডিজিটাইজেশন যাত্রায় অনুঘটকের ভূমিকা পালন করতে পেরে আমরা খুশি।

 

এক শাম আপকে নাম অনুষ্ঠানে অভিনেত্রী চিত্রাঙ্গদা সিং, সঙ্গীতশিল্পী কেকে, বালুশিল্পী সর্বম পটেৱ, শেফ মেঘনা কামদার এবং আরজে অভিনব সিং। এই বিখ্যাত ব্যক্তিত্বরা অনুষ্ঠানে পারফর্ম করার পাশাপাশি অংশগ্রহণকারীদের উদ্বুদ্ধ করেন। পরে, খুচরো ব্যবসায়ীদের পরিবারের সদস্যরা অঙ্কন, সঙ্গীত, নৃত্য এবং রন্ধন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন, যেখানে বিচারকের আসন গ্রহণ করেছিলেন এই সেলেব্রিটিরাই।  

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here

Pages