যাত্রা শুরু নাসার রোভারের, পাড়ি মঙ্গলের উদ্দেশ্যে - Songoti

যাত্রা শুরু নাসার রোভারের, পাড়ি মঙ্গলের উদ্দেশ্যে

Share This
কেপ ক্যানাভেরাল : লালগ্রহের উদ্দেশ্যে সফলভাবে যাত্রা শুরু করল আমেরিকার মহাকাশযান 'পারসিভারেন্স' বৃহস্পতিবার ভারতীয় সময় বিকেল ৫.২০ মিনিটে আটলাস ৫ রকেটে চেপে সফলভাবে মঙ্গলগ্রহের উদ্দেশে যাত্রা শুরু এই রোভার। নাসার এডমিনিষ্ট্রেটর জিম ব্রিডেনস্টাইন এক প্রেস বিবৃতিতে জানিয়েছেন, মঙ্গলের যাত্রা সবসময়ই কঠিন। তার মধ্যে গোটা পৃথিবীজুড়ে এখন করোনার প্রকোপ চলছে। এই অবস্থায় মঙ্গল-অভিযান রীতিমতো চ্যালেঞ্জের ছিল। সবকিছু ঠিকঠাক চললে আমেরিকাই হবে একমাত্র দেশ, যাদের মহাকাশযান মঙ্গলের মাটিতে নবমবার 


সফলভাবে পদার্পণ করবে। তবে এর জন্য অপেক্ষা আরও সাত মাসের। আগামী বছর ফেব্রুয়ারি মাসে লালগ্রহের মাটিতে নামবে পারসিভারেন্স। নাসার এক শীর্ষ কর্তার কথায়, লালগ্রহের মাটি ছোঁয়ার আগের সাত মিনিটই সব থেকে উৎকণ্ঠার। কারণ এই সময় রোভারকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার গতি ১৯৩০০ কিমি /প্রতি ঘণ্টা থেকে কমিয়ে শূন্যতে নামিয়ে আনতে হবে।কিন্তু, নাসা তো এর আগে আটবার সফলভাবে মঙ্গলে অবতরণ করেছে। তাহলে এবার এত উদ্বেগ কেন? ওই শীর্ষ কর্তার কথায়, প্রত্যেকবারই উৎকণ্ঠা থাকে। এবারও রয়েছে। কারণ এবারই প্রথম পারসিভারেন্স মঙ্গলের মাটিতে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজবে। সেখানকার মাটি ও পাথর থেকে বিভিন্ন নমুনা সংগ্রহ করবে। যা ফেরত আনা 


হবে। তবে মঙ্গল গ্রহ থেকে কোনও যানকে ফেরত আনার মতো প্রযুক্তি এখনও পৃথিবীর কোনও বিজ্ঞানীদের কাছে নেই। তাই সেটা বেশ চ্যালেঞ্জিং। এবং এই অভিযানের সম্পূর্ণ সাফল্য মিলতে মিলতে আরও ৮-১০ বছর লেগে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন নাসার বিজ্ঞানীরাও। এই অভিযানের সঙ্গে যুক্ত থাকা নাসার জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরির (জেপিএল) বাঙালি বিজ্ঞানী গৌতম চট্টোপাধ্যায় বলেন, এখন আগামী সাত মাসের বিনিদ্র রজনী কাটাতে হবে বিজ্ঞানীদের। ফেব্রুয়ারিতে চূড়ান্ত সাফল্য মিললে মহাকাশ বিজ্ঞানের এক দিক উন্মোচিত হবে।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Post Bottom Ad

Responsive Ads Here

Pages